প্রতারণার শেষ হল অনলাইন অ্যাড ক্লিক (Onlineaddclick.Net)

লিখেছেন: | প্রকাশিত হয়েছে: 10 এপ্রিল 2012 | 1,785 বার দেখা হয়েছে | 5 টি মন্তব্য | 40

বাশ এবং বাশ খাওয়ার পরেও হুশ ফিরে আসেনা কারোও। বেশ কিছুদিন থেকেই (মোটামুটি ৪-৫) হল কয়েকটা বাংলাদেশি কম্পানি গড়ে উথেছে সাধারন জনগন ও ছাত্র/ছাত্রিদের প্রতারণা করার জন্য।

তাদের মধ্যে অন্যতম কয়েকটা সাইট হলঃ

  • স্কাইলান্স্যার (skylancers.com)
  • ডুলান্সার (Dolancer.com)
  • অনলাইন অ্যাড ক্লিক (Onlineaddclick.net)
  • অনলাইন নেট টু ওয়ার্ক (Onlinenet2work.com)

সহ আরও অনেক…

এবং এই সকল কোম্পানি/সাইট গুলো সাধারন জনগণ ও ছাত্র/ছাত্রিদের কে লাখ লাখ টাকার সপ্ন দেখিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। এক্ষেত্রে সাধারন জনগণ ও ছাত্র/ছাত্রীদের মুল্যবান সময় সহ তাদের সুগঠিত মেধার অসৎ ব্যবহার করছে। এবং তাদের প্রয়োজন (পকেট ভর্তি) শেষ হওয়ার পরেই সবাকে বাশ দিয়ে চলে জাচ্ছে এবং সর্ব শেষ যে বাশ দিয়েছে সেই কোম্পানির নাম হচ্ছে অনলাইনঅ্যাডক্লিক (Onlineaddclick.net)

সুধু অনলাইন অ্যাড ক্লিক নতুন বাশ দেয়ার কোম্পানি নয় এর আগেও বেশ কিছু কোম্পানি কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাদের কোম্পানি গুটিয়ে নিয়েছে।

যেমনঃ

  • ইউনিপেটুইয়উ
  • ক্লাব এস্টেরিয়া
  • ও স্পিক এশিয়া।

সহ আরোও অনেক…

কিন্তু এর পরেও হুশ হচ্ছে না সাধারন জনগণের!

এখন সবাই (মানে যারা অনলাইন অ্যাড ক্লিক এর সদস্য) তারা আমাকে আজেবাজে মন্তব্যের মাঝে জানাবেন যেঃ সার্ভার ঠিক আছে আগের চেয়ে অনেক ফাস্ট **** এখন সার্ভার ওপেন আছে। সমস্যা দূর করার জন্য চলে এতদিন বন্ধ ছিল ইত্যাদি ইত্যাদি…

কিন্ত আপনারা সবাই একবার ভেবে দেখেছেন কি? যে আপনাদের একাউন্ট এ ১০০, ১০০০, ৪০০০, ৫০০ অথবা তারোও বেশি এবং কম? এই টাকা গুলো এখন আপনাদের কোম্পানি কোথা থেকে ফেরত দেবে? আপনাদের উত্তর হতে পারেঃ কেন আমি আরেকজনের কাছে ট্র্যান্সফার করে টাকা নিয়ে নেবো। কিন্তু আমি আপনাদের বলবো আপনারা আবারোও ভুল করছেন কেনোনা এখন আপনাদের সেই টাকা কেউ কিনে নেবে না কারন হচ্ছে এখন অ্যাডক্লিক এর নতুন সদস্য জয়েন করা বন্ধ আছে তাই আপনার টাকা কেউ কিনে নেবে না :P আরোও একটি আইডিয়া আপনাদের মাথায় আসতে পারেঃ যে ব্যাংক অথবা অনলাইন প্রেমেন্ট প্রসেসর এর মাধ্যমে নেব? কিন্তু মিয়া ভাই একবার চেস্টা করেই দেখুন পান কি না?

এমএলএম ব্যবসা যেভাবে হয়ঃ

মনে করুন আপনি একজন সদস্য এমএলএম কম্পানির। এক জন কে জয়েন করালে পাবেন কমিশন হিসেবে ১০ টাকা এবং দুইজন জয়েন করাইলে পাবেন আরোও ১০ টাকা। এবং অই জন এর জয়েন শেষ হলে আবারো ম্যাচিং হিসেবে পাবেন ১০ টাকা। তার মানে হলঃ আপনি কোম্পানি কে দিলেন ১০০ এবং দুইজন জয়েন করিয়ে আবারো দিলেন ২০০ তাহলে কোম্পানি পেলো ৩০০ এবং আপনাকে কমিশন ৩০ তাহলে কোম্পানির রইলো ২৭০ টাকা এভাবেই আপনি যদি কয়েক লেভেল নিয়ে হিসেব করেন তাহলে দেখবেন যে এক সময় আপনি কোম্পানিকে হাতে অথবা ব্যাংক এর মাধ্যমে কোন টাকায় দিচ্ছেন না কারন আপনার একাউন্ট এ ক্লিক, জয়েনিং এবং ম্যাচিং বোনাস এর মাধ্যমেই অনেক টাকা পেয়ে গেছেন এবং এই টাকা গুলো দিয়েই আপনি নতুন সদস্যদের জয়েন করাচ্ছেন তার মানে দাঁড়ায় যে কোম্পানির তখন কোন লাভ থাকে না সুধু লস আর লস তাই সেই সময় কোম্পানি গুটিয়ে (মাইক সাইটা ঘুমাইতে যায়) কারন তাদের যাত্রা সেখানেই শেষ হয়।

হয়তো আপনাদের মনে প্রস্ন জাগতে পারে যে প্রতিদিন যে অ্যাডগুলো দেয়া থাকে সেই অ্যাডগুলো থেকেই তো কোম্পানি অনেক টাকা পায় সেগুলো থেকেই হয়তো আমাদের পে করে। কিন্তু এক্তু ভাবুন অ্যাড এর জন্য আপনাকে প্রতিদিন প্রতিটি অ্যাডের জন্য পে করা হয় ০.১৫ কিন্তু ভেবেই দেখুন এই একটা পিটিসি সাইটে অ্যাড দেখানোর জন্য কনো প্রতিষ্ঠান কেন প্রতি ৩০ সেকেন্ড ভিজিট এর জন্য ০.১৫ দেবে? যদি ইউনিক ভিজিটর হয় তাহলে আলাদা কথা। গুগল এর কোম্পানি গুগল এর মত এত বড় কোম্পানির কি হবে? তারা যে অ্যাডসেন্স এর সাহায্য দুনিয়ার সকল ওয়েবসাইট এ অ্যাড দেই এবং সেই অ্যাড এ ক্লিক করলেই টাকা কাউন্ট হয়না যদি সেটা ইউনিক নান হয়।

তাই আমি আপনাদের বলি এই সব কোম্পানিতে দে যে অ্যাডগুলো দেয়া হয় তা সবিই ফেক যা এমএলএম কোম্পানি গুলো নিজেরাই অ্যাড করে কোন প্রতিষ্ঠানের অনুমতি ছাড়াই তারা :D আসলে এগুলো সবার চোখে ঠিকভাবে ধরে না।

এইতো বেশ কয়েকদিন আগে একজন মুকচুট (বেশি বুঝে ও মিথ্যে কথা বলে) এসে আমার পাশে বসে তার ল্যাপটপ থেকে ডোলান্সার এর অ্যাড এ ক্লিক করছিল সে তাকে আমি সম্মান করি বলেই এই ব্যপারে কিছু বলিনি সুধুই দেখছিলাম সে কি করে। কিচ্ছু খনের মধ্যেই একটা অ্যাড আসলো এবং সেই অ্যাড এর পাতায় যা লেখা ছিল তা দেখে আমি তাকে বললাম ভাইয়া অ্যাড তো অনেক ক্লিক করেছেন কিন্তু এই লেখা কি কোনোদিন পড়ে দেখেছেন?

যা লিখা ছিলঃ (ইংরেজিতে ছিল আমি বাংলা করলাম) ” প্রিয় ভিজিটর আপনাকে আমাদের পেজে স্বাগতম, তবে ডোলান্সার এর সদস্যদের জন্য এই পাতাটি দেখার অনুমতি নেই। ডোলান্সার এর সাথে আমাদের কনো সম্পর্ক নেই এবং আমাদের ওয়েব সাইটটি আমাদের অনুমতি ছাড়াই ডোলান্সার তাদের সদস্য দের অ্যাড হিসেবে দেখানো হচ্ছে) আমরা ডোলান্সার এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি এবং তাদের বলছি তারা যেন এই আমাদের লিঙ্ক যত দ্রুত সম্ভব মুছে দেই। যদি আপনি আমাদের সাথে ব্যবসা করতে চান তাহলে সবসময় স্বাগতম।

এই লেখাটি আমি একবার নয় বেশ কয়েকবার দেখেছি :P

এমএলএম ব্যবসা করে কেউ অনেক বড়লোক হয়ে যায় এবং অনেকেই হয়ে যায় নিঃস্ব তাই এই ধরনের চিট ব্যবসা থেকে সবাই বিরত থাকুন এবং নিজে চিন্তা থেকে মুক্ত থাকুন এবং অন্যকেউ চিন্তা মুক্ত রাখুন। আমি নিজেই দেখেছি অনেকি তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিশ বিক্রয় করে এমএলএম ব্যবসা করতে গিয়ে ধরা খেয়েছেন।

যায় হোক আমার লেখা এখানেই শেষ করছি আর আপনাদের বলে জাচ্ছি আপনারা সবাই যতটুকু সময় এমএলএম ব্যবসার পিছনে শেষ করে থাকেন তার অর্ধেক সময় ব্যয় করে কিছু সিখুন এবং ফ্রিলান্সিং করুন।

ধন্যবাদ!

লেখকঃ 1 টি প্রকাশনা ও 0 টি মন্তব্য

এই লেখক তার সম্বন্ধে কিছুই সেয়ার করেননি। এই স্থানে আপনার সম্বন্ধে কিছু সেয়ার করতে চাইলে ড্যাশবোর্ড এ লগইন করে প্রোফাইল সম্পাদনা করুন।

5 টি জবাব to “প্রতারণার শেষ হল অনলাইন অ্যাড ক্লিক (Onlineaddclick.Net)”

  1. তামিম(বাংলার মানুষ) 10 এপ্রিল 2012 at 1:36 অপরাহ্ন Permalink

    আমার বড় কাকা কয়েক লাখ টাকা বাঁশ খাইলো :( মানে খাইছিলো। যখন নেটে ছিলাম না, বুঝতাম না কিছুই তখন unipay2u.com এর *রে *প….. । কোথা থেকে তার বন্ধুদের কাছ থেকে জেনে পেনশনের সব টাকা লাগাই ছিল। এখন কানা কড়িও নেই কাকার কাছে :/ । এখন আবার শুন্তেছি ডেস্টিনি সহ আরো অনেক গুলোতেই করছিলো। তার মানে সামনে বিরাট অংকের আরো বাঁশ খাবে। সব মিলিয়ে অনেক লাখ টাকা (টাকার অংক বলতে চাচ্ছি না। মানুষ), এতো বছর সরকারি চাকরীর পর পেশনের টাকা তো আর কম নয়!

  2. kousar1222 10 এপ্রিল 2012 at 10:52 অপরাহ্ন Permalink

    ভাইয়া বাংলাদেশের http://www.bdsclickcenter.com কোম্পানি ও কি পালাবে।আপপনার লেখা পড়ে তাই মনে হচ্ছে।ভাইয়া এর থেকে বাচার উপায় কি।তারা তো কোটি কোটি টাকা কামিয়ে নিচ্ছে ।এর প্রতিকার কি।যাতে সবাই বাচতে পারে।

  3. বাংলার মানুষ 12 এপ্রিল 2012 at 6:19 অপরাহ্ন Permalink

    ভাই এড ক্লিক ত আছে এখনও দয়া করে কি বলবেন যে আপনি কোন দেশের মানুষ । আপনি কি অন্ধ নাকি ।

  4. Captain Aslam 19 এপ্রিল 2012 at 12:59 অপরাহ্ন Permalink

    এর থেকে বাচার উপায় হল, যদি দেখেন কেউ ইচ্ছাকৃত ভাবে বাশ খাচ্ছে তবে দৃষ্টি জুড়িয়ে দেখতে থাকুন। কিছু বলবেন না। ( আমার মনে হয় বলেও লাভ হবে না।) আমি অনেক মানুষকে বুঝিয়েছি কিন্তু লাভ হয়নি। পবিত্র আল কুরআন এ সুদ থেকে দূরে থাকার জন্যে ৭০ বার নিষেধ করেছেন আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিন। তার পরও ৮০ থেকে ৯০ ভাগ মুসলিম সুদের সাথে জড়িত। তাই বলিব ভাই যে যেখানে শান্তি পায় বা স্বাচ্ছন্দ বোধ করে করুক। আপনার বা আমার তাতে ভাল না লাগলেও কিছু যায় আসে না। আর আমি সবাইকে পিটিসি থেকে দূরে থাকতে বলি। কিন্তু যাদেরকে বলি তারা কি দুরা থাকে ?

  5. rahul 20 এপ্রিল 2012 at 9:17 পূর্বাহ্ন Permalink

    আজ onlineaddclick.net এর 80 dollar হাওয়া হয়ে গাছে সবার অ্যাকাউন্ট থেকে…।


আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনাকে অবশ্যই লগইন করে এই প্রকাশনায় মন্তব্য করতে হবে।